sundaytimes 24 | Popular News Protal in Bangladesh

যন্ত্র থেকে হওয়া যন্ত্রণা দূরে রাখতে

যন্ত্র থেকে হওয়া যন্ত্রণা দূরে রাখতে

যন্ত্র থেকে হওয়া যন্ত্রণা দূরে রাখতে
September 29
16:27 2017

খবর > লাইফস্টাইল
456

Shares
যন্ত্র থেকে হওয়া যন্ত্রণা দূরে রাখতে

লাইফস্টাইল ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Published: 2017-09-06 10:27:34.0 BdST Updated: 2017-09-06 13:53:55.0 BdST

প্রযুক্তি আমাদের বসে কাজ করার পরিমাণ বাড়াচ্ছে। হাতের স্মার্টফোন, কোলের ল্যাপটপ বা দেয়ালে ঝোলানো ফ্ল্যাট টিভির সঙ্গে কেটে যাচ্ছে সময়। ফলে নড়াচড়া হচ্ছে কম। আর একভাবে বেশিক্ষণ বসে থাকার জন্য শরীরে ধরছে নানান ব্যথা।

স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে এই বিষয়ের উপর করা প্রতিবেদনে আমেরিকান সোসাইটি অফ অ্যানেসথেসিওলজিস্টস (এএসএ)’য়ের দেশব্যাপি এক জরিপের ফলাফল থেকে জানায়, প্রযুক্তি পণ্যের প্রতি ভালোবাসা থেকে চোখ, ঘাড়, আঙুল বা হাতে ব্যথা, মাইগ্রেইন ও খেলাধুলাভিত্তিক আঘাতের মাত্রা বাড়ে।

জরিপ অনুযায়ী, আমেরিকার বর্তমান প্রজন্মের ৭৫ শতাংশ ভুগছে আকস্মিক ব্যথায়। যা হুট করে শুরু হয়ে তিনমাস পর্যন্ত থাকতে পারে। আবার প্রায় ৬০ শতাংশ ব্যথায় ভোগেন দীর্ঘদিন ধরে।

তাই নিরাপদ ও কার্যকর উপায়ে ব্যথা নিয়ন্ত্রণের উপায় জানা উচিত সকলের।

আমেরিকান সোসাইটি অফ এনেসথেসিওলজিস্টস (এএসএ) জানিয়েছে কয়েকটি উপায়।

* স্মার্টফোন, ট্যাবলেট ইত্যাদি যন্ত্র ব্যবহার থেকে সাময়িক বিরতি নিন। কারণ এগুলো ব্যথা ও অস্বস্তির জন্য দায়ী। ব্যথা এড়াতে এই ধরনের যন্ত্র মাথা নিচু করে ব্যবহার না করে চোখের সমান্তরালে নিয়ে ব্যবহার করতে হবে।

* হাত ও আঙুলের উপর চাপ কামতে ‘টক টু টেক্সট’ ফিচারটি ব্যবহার করা যেতে পারে।

* গেইম খেলার সময় পিঠ সোজা রেখে বসতে হবে এবং কিছুক্ষণ পর পর উঠে দাঁড়িয়ে শরীর টান টান করতে হবে।

* চোখের উপর চাপ কমাতে প্রতি ২০ সেকেন্ড পর কিছুক্ষণ দূরে তাকিয়ে থাকুন।

* ’গ্যাজেট’ ছেড়ে দীর্ঘদিন পরে খেলাধুলা বা ব্যায়াম করতে গিয়েও আঘাত পেতে পারেন, তাই শুরু করতে হবে ধীরে।

* খেলা কিংবা ব্যায়াম করার আগে ভালো ‘ওয়ার্ম-আপ’ ও ‘স্ট্রেচিং’ করে নিতে হবে। আর ব্যথা পেলে অবশ্যই একজন বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিতে হবে।

* অলস সময় কাটালেও প্রতি এক ঘণ্টা পর নড়াচড়া করা জরুরি। অনেক্ষণ শুয়ে বা বসে থাকলে শারীরে ব্যথা হওয়ার আশঙ্কা বাড়ে। বিশেষ করে পিঠের নিচের অংশে। দাঁড়ানো ও হাঁটাহাঁটির মাধ্যমে পা ও পিঠ টানটান করতে হবে নিয়মিত।

* নিজের স্বাস্থ্যের দায়িত্ব নিতে হবে নিজকেই, গড়তে হবে স্বাস্থ্যকর অভ্যাস। ব্যথার চিকিৎসা করার চাইতে ব্যথা সম্ভাবনা দূর করা সবসময়ই ভালো। ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন, পরিমিত পরিমাণে খাবার খান, ধূমপান পরিহার করুন।

About Author

nahianit

nahianit

Related Articles

0 Comments

No Comments Yet!

There are no comments at the moment, do you want to add one?

Write a comment

Write a Comment